ডেস্ক রিপোর্ট: কানাডিয়ান হিউম্যান রাইটস ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন (সিএইচআরআইও) নামের একটি সংগঠন ২০১৮ সালের ৩১ জুলাই বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে ‘মাদার অব ডেমোক্রেসি’ সম্মাননা দিয়েছিল।

বিএনপি নেত্রীর ওই সম্মাননা পাওয়ার সাড়ে তিন বছর পর মঙ্গলবার (৮ ফেব্রুয়ারি) গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে এ তথ্য জানান দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এ সময় তিনি সম্মাননা ক্রেস্ট ও সনদ সাংবাদিকদের কাছে উপস্থাপন করেন।

Advertisement
কম খরচে বীর বাঙালির মতো নিউজপেপার ওয়েবসাইট তৈরি করতে চান?

আগ্রহী হলে ক্লিক করুন (www.bdwebsite.net)

সাড়ে ৩ বছর পরে এসে এই পুরস্কারপ্রাপ্তির কথা জানানোর কারণ কী, জানতে চাইলে মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, এই সম্মাননা যখন দেওয়া হয় তখন ম্যাডাম (খালেদা জিয়া) জেলে ছিলেন দুই বছর। তারপর অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ছিলেন কয়েকবার। এখন উনি বাসায় এসেছেন। আমরা তাকে এই সম্মাননার কথা জানিয়েছি। আপনাদেরও জানলাম।

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালে কানাডার একটি আদালত বিএনপিকে সন্ত্রাসী দল বলে আখ্যা দেয়। ওই সময় বিএনপিকে সন্ত্রাসী সংগঠন উল্লেখ করে কানাডায় দলটির আরও একজন সদস্যের রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদন নাকচ করে দেন সেদেশের আদালত।

এ রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করার সুযোগ দেওয়ার আবেদনও নাকচ করে দেন অন্টারিও আদালত। ২০১৭ সালের ১২ মে ফেডারেল আদালত এমন রায় দেন। রায়ের নথি থেকে জানা যায়, বিএনপির কার্যনির্বাহী কমিটির একজন জয়েন্ট সেক্রেটারির রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদন সংক্রান্ত রিভিউ আবেদন নিষ্পত্তি করতে গিয়ে বিচারক এ রায় দেন।

এর কারণ হিসেবে বাংলাদেশে বিএনপি সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে জড়িত ছিল, আছে এবং ভবিষ্যতেও থাকতে পারে বলে উল্লেখ করা হয়। তবে তার পরিচয় প্রকাশ করা হয়নি।

এর আগে ওই বছরের শুরুর দিকে একই কারণে বিএনপির আরেকজন কর্মীর কানাডায় অভিবাসনের আবেদন খারিজ করে দেন দেশটির আদালত।

সংবাদ সম্মেলনে দেখানো ক্রেস্ট অনুযায়ী-কানাডার আদালতের এমন রায়ের প্রায় ১৪ মাস পর বিএনপি চেয়ারপাসনকে ‘মাদার অব ডেমোক্রেসি’ পুরস্কার দেওয়া হয়। কিন্তু দলটি সাড়ে ৩ বছর পর এই তথ্য জনসম্মুখে নিয়ে আসল। যদিও চার বছর আগে থেকে বিএনপির নেতারা বক্তৃতা-বিবৃতিতে খালেদা জিয়াকে মাদার অব ডেমোক্রেসি বা গণতন্ত্রের মাতা বলে সম্বোধন করছেন। এর শুরু হয় মূলত জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের দুর্নীতির মামলায় ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়া কারাবন্দী হওয়ার পর। এর এক মাস পর ১০ মার্চ দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর খুলনা মহানগরে এক সমাবেশে প্রথম খালেদা জিয়াকে মাদার অব ডেমোক্রেসি বলে সম্বোধন করেন।