চীনের উহান থেকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের দাপটে প্রতিদিন মৃত্যু ও আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। ইতোমধ্যে ভাইরাসটিতে মৃত্যু ১১ লাখ ৭১ হাজার ছাড়িয়েছে। সমগ্র বিশ্ববাসী এখন কোভিড-১৯ এর ভ্যাকসিনের অপেক্ষায়। এদিকে আশার বানী শোনালো আন্তর্জাতিক ওষুধ প্রস্তুতকারী সংস্থা ফাইজার। সংস্থাটি দাবি করেছে চলতি বছরেই বাজারে করোনার ভ্যাকসিন সরবরাহ করা যাবে।

মঙ্গলবার সংস্থাটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা অ্যালবার্ট ব্যুরলা জানিয়েছেন, ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের সদর্থক ফল অব্যাহত থাকলে এবং প্রয়োজনীয় অনুমোদন পাওয়া গেলে ২০২০ সালে আমেরিকায় প্রায় ৪ কোটি করোনাভাইরাস প্রতিষেধক ভ্যাকসিনের ডোজ সরবারহ করতে পারবে তার সংস্থা।

তিনি জানিয়েছেন, নভেম্বর মাসের তৃতীয় সপ্তাহের মধ্যে ভ্যাক্সিনের আপৎকালীন ব্যবহারের অনুমতি চেয়ে কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন জানাতে পারে ফাইজার। সংস্থার তৈরি ভ্যাক্সিন মহামারি মোকাবিলায় সফল হবেই- এই বিষয়ে আশাবাদী ব্যুরলা।

অন্যদিকে, মহামারির প্রকোপে ফাইজারের লাভের পরিমাণ ৭১% হ্রাস পেয়েছে বলেও জানিয়েছেন অ্যালবার্ট ব্যুরলা। তার হিসেবে, এর জন্য প্রায় ২২০০ কোটি ডলার মুনাফা কমেছে।

মহামারিতে হাসপাতাল ব্যবসা প্রায় ১১% কমেছে ফাইজারের। এর কারণ হিসেবে চীনে অস্ত্রোপচারের মাত্রা কমাকেই দায়ি করছে সংস্থা। সেই সঙ্গে হাসপাতালে রোগীর ভর্তি থাকার মেয়াদও উল্লেখযোগ্য হারে হ্রাস পেয়েছে।

এদিকে ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্যানুযায়ী, বুধবার সকাল পর্যন্ত বিশ্বে করোনায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪ কোটি ৪২ লাখ ৩৫ হাজার ২৬৩ জন। মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১১ লাখ ৭১ হাজার ২৮৮ জন। সংক্রমণ থেকে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন তিন কোটি ২৪ লাখের বেশি মানুষ।

করোনায় এখন পর্যন্ত সবচেয়ে সংক্রমণ ও মৃত্যু বেশি হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে। দেশটির সবকটি অঙ্গরাজ্যেই বাড়ছে করোনার সংক্রমণ। দেশটিতে এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ৯০ লাখ ৩৮ হাজার ৩০ জন। মৃত্যু হয়েছে দুই লাখ ৩২ হাজার ৮৪ জনের।

দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ভারতে এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ৭৯ লাখ ৮৮ হাজার ৮৫৩ জন এবং মৃত্যু হয়েছে এক লাখ ২০ হাজার ৫৪ জনের।

তৃতীয় অবস্থানে থাকা লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিলে এখন পর্যন্ত করোনায় ৫৪ লাখ ৪০ হাজার ৯০৩ জন আক্রান্ত হয়েছে। মৃত্যু হয়েছে এক লাখ ৫৭ হাজার ৯৮১ জনের।

চতুর্থ অবস্থানে থাকা রাশিয়ায় এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১৫ লাখ ৪৭ হাজার ৭৭৪ জন। এর মধ্যে মারা গেছেন ২৬ হাজার ৫৮৯ জন।

পঞ্চম স্থানে উঠে আসা স্পেনে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ১১ লাখ ৯৮ হাজার ৬৯৫ জন। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৩৫ হাজার ৫৪১ জনের।

বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত ৪ লাখ ১ হাজার ৫৮৬ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। দেশে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৫ হাজার ৮৩৮ জনের। আর সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৩ লাখ ১৮ হাজার ১২৩ জন।