ডেস্ক রিপোর্ট: গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে বিদেশি জাতের গাভির প্রজনন থেকে ভূমিষ্ঠ ৪০ দিন বয়সী একটি বকনা বাছুর দৈনিক আধা লিটার করে দুধ দিচ্ছে। ব্যতিক্রমী এ দৃশ্য দেখতে উৎসুক জনতা গরুর মালিকের বাড়িতে ভিড় করছেন।

উপজেলার সর্বানন্দ ইউনিয়নের কিশামত সর্বানন্দ গ্রামের আফছার আলীর বাড়িতে এ ঘটনা ঘটেছে।

রোববার (১০ অক্টোবর) বিকেলে খামারি আফছার আলীর বাড়িতে গিয়ে দেখা গেছে, আশপাশের গ্রাম থেকে আসা উৎসুক মানুষ ওই বাড়িতে ভিড় করেছেন। আফছার আলী দুধ দোহন করছেন।

গরুর মালিক আফছার আলী বলেন, তিনি প্রতিদিন একবেলা করে দুধ সংগ্রহ করেন। দুধ সংগ্রহ না করলে বাছুরটির ওলান ফুলে শক্ত হয়ে যায়। তিনি ১৫ দিন ধরে এভাবে দুধ সংগ্রহ করছেন।

আফছার আলী পেশায় একজন কৃষক। জমি চাষাবাদ ও গরু লালন-পালন করে সংসার চালান। পরিবারে স্ত্রী ছাড়াও তিন ছেলে ও চার মেয়ে রয়েছে। গত ২৫ সেপ্টেম্বর সকালে আফছার আলী বকনা বাছুরটির কাছে গিয়ে দেখতে পান বাছুরটির ওলান ফোলা। তখনই তিনি ধারণা করেন এর ওলানে দুধ জমেছে। পরে স্থানীয় পশু চিকিৎসককে নিয়ে এসে বিষয়টি নিশ্চিত হন।

তিনি তাৎক্ষণিকভাবে ওলান থেকে দুধ সংগ্রহ করেন। প্রথম দুইদিন এক পোয়া দুধ পান। এখন আধা লিটার, কখনো তিন পোয়া দুধ সংগ্রহ করেন। বিষয়টি শুনে অবাক হয়ে প্রতিবেশীসহ বিভিন্ন গ্রাম থেকে মানুষ তা দেখার জন্য বাড়িতে ভিড় করছেন।

ব্যতিক্রমী এ বাছুরটি দেখতে আসা গ্রামের বাসিন্দা স্থানীয় যুবক আব্দুল মালেক বলেন, আমি ছোটবেলা থেকেই গরু লালন-পালন করি। কখনো বাছুর ছাড়া এভাবে গরুকে দুধ দিতে দেখিনি।

বাছুর দেখতে আসা কলেজছাত্র সিহাব উদ্দিন বলেন, ৪০ দিনের বকনা বাছুর দুধ দেয়, লোকমুখে এমন খবর শুনেছি। এখন এসে দেখি ঘটনা সত্য। এমন ঘটনা জীবনে প্রথম দেখলাম।

সুন্দরগঞ্জ উপজেলা উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ফজলুল করিম বলেন, হরমোনের কারণে এমনটা হতে পারে। হরমোন যদি বেড়ে যায় তাহলে এরকম বকনা গরু থেকে দুধ আসতে পারে। এটা নিয়ে কৌতূহলের কিছু নেই। যদি এ দুধ স্বাস্থ্যসম্মত হয় তাহলে এটা যে কেউ খেতে পারেন।